শুক্রবার   ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৯ ১৪২৬   ১৫ রবিউস সানি ১৪৪১

নভেম্বর মাসে গড়ে প্রতি ১০ দিনে ঘটেছে দু’টি ধর্ষণের ঘটনা

প্রকাশিত: ২ ডিসেম্বর ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : নারায়ণগঞ্জে ধর্ষণ বেড়েছে আশঙ্কাজনক হারে। প্রতি মাসেই বাড়ছে ধর্ষণের হার । শুধু নভেম্বর মাসেই গড়ে প্রতি ১০ দিনে ২ টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। 


এ তথ্য কেবল তাদের যারা ধর্ষকের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। সমাজে মানহানির ভয় ও ক্ষমতার জোড়ে এমন অনেক ঘটনাই পড়ে যাচ্ছে বিচারহীনতার তালিকায়। 


ধর্ষকদের নৃশংসতার শিকারে ছাড় পায়নি শিশুরাও। শিশুরাও পৈশাচিক বর্বরতার শিকার হচ্ছে। নভেম্বর মাসে জেলায় ৬টি ধর্ষণ ও ১টি ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে। ৭টি ঘটনায় ২ জন শিশু এই ধর্ষকদের বর্বরতার শিকার হয়েছে।  


তথ্যসূত্রানুসারে, ২৪ নভেম্বর রূপগঞ্জে স্বপন বিশ্বাস (২৬) নামে এক যুকের বিরুদ্ধে এক গার্মেন্টস শ্রমিককে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওইদিন ধর্ষিতা বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় মামলাটি দায়ের করেন। স্বপন বিশ্বাসের দেওয়া কুপ্রস্তাবে রাজি না হলে ৭ নভেম্বর মধ্যে রাতে তার ঘরে প্রবেশ করে ওই নারী শ্রমিককে ধর্ষণ করে।


২১ নভেম্বর সোনারগাঁয়ে পিরোজপুর ইউনিয়নে আলমগীর হোসেন নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে ৭ম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শিশুটির বাবা-মায়ের অনুপস্থিতিতে বাড়ি খালি পেয়ে আলমগীর হোসেন ঘরে ঢুকে তার মুখ চেপে ধরে ওড়না দিয়ে হাত পা বেঁধে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। ঘটনার পর কৌশলে অভিযুক্তকারী পালিয়ে যায়। সেদিন রাতে ভুক্তভোগীর মা বাদী হয়ে সোনারগাঁ থানায় অভিযোগ করেছেন।


১৯ নভেম্বর বন্দরে জামাল ও আয়নাল  নামে দুই যুবকের বিরুদ্ধে এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরীকে (১৩) ধর্ষণের অভিযোগে উঠেছে। ৩০ নভেম্বর ভুক্তভোগীর মা বাদী হয়ে বন্দর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণ মামলা দায়ের করলে ওই রাতেই পুলিশ আসামি জামালকে গ্রেফতার করে। 


১৫ নভেম্বর বন্দর রাজবাড়ি এলাকা থেকে এক যুবতীকে (১৮) ধর্ষণের অভিযোগে উজ্জল (২৬) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে বন্দর ফাঁড়ি পুলিশ। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ১৩ নভেম্বর বাড়িতে ধর্ষক উজ্জল তাকে বাড়িতে ডেকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ধর্ষিতা বাদী হয়ে বন্দর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছে।  


১৪ নভেম্বর রূপগঞ্জের গোলাকান্দাইল এলাকায় পোশাক কারখানার শ্রমিক (২৮) গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন গোলাকান্দাইল মধ্যপাড়া এলাকার ইমানউল্লার ছেলে ইমরান মিয়া ও একই এলাকার মৃত রমজান মোল্লার ছেলে সবুজ মোল্লা। ভুক্তভোগীকে কারখানায় যাওয়ার সময় ভয় দেখিয়ে অভিযুক্তকারীরা পালাক্রমে তাকে ধর্ষণ করে


১১ নভেম্বর সোনারগাঁয়ের ২ সন্তানের জননীকে (৩৫) ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার সকাল উপজেলার কাঁচপুর ইউনিয়নে সাহায্য দেওয়ার কথা বলে ধর্ষক হান্নানুর রহমান রতন (৫৭) তাকে ধর্ষণ করে। বেহাকৈর ব্যানডিস কারখানা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।


৮ নভেম্বর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে অসহায় যুবতীকে ধর্ষণ আজিজুল হককে (৪৩) আটক করেছে মদনগঞ্জ ফাঁড়ি পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে ঘারমোড়া বাজার এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। ওই দিন রাতে ধর্ষিতা যুবতী বাদী হয়ে বন্দর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। 
 

এই বিভাগের আরো খবর