শুক্রবার   ২৯ মে ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৭   ০৬ শাওয়াল ১৪৪১

ত্বকীসহ করোনায় নিহতদের স্মরণে দুই শতাধিক গৃহে আলোকপ্রজ্বালন

প্রকাশিত: ৮ এপ্রিল ২০২০  

যুগের চিন্তা রিপোর্ট : নারায়ণগঞ্জের মেধাবী ছাত্র তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী হত্যার বিচারের দাবিতে নগরীতে প্রতিমাসের ৮ তারিখ ধারাবাহিকভাবে আলোকপ্রজ্বালন কর্মসূচি পালন করে আসছে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট। তবে এবার শুধু তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী নয়, সারা বিশ্বের করোনায় আক্রান্ত হয়ে নিহতদের স্মরণে ও বিশ্ব শান্তির কামনায় একযোগে দুই শতাধিক গৃহে সামাজিক দূরত্ব মেনে মোমশিখা প্রজ্বালন কর্মসূচি পালন করলো নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাতটায় নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের আহবানে সাড়া দিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা প্রায় দুই শতাধিক বাড়িতে এই কর্মসূচি পালন করেন। 

 

নিহত ত্বকীর পিতা সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আহবায়ক রফিউর রাব্বি বলেন, বাংলাদেশসহ আমরা সারা বিশ্বের মানুষ এখন ইতিহাসের কঠিন সময় অতিবাহিত করছি। বিশ্ব আজ এক ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখোমুখি। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ এ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে, মৃত্যুবরণ করছে। মানবসভ্যতার ইতিহাসে এ এক ভয়াবহ বিপর্যয়। যারা একটি সুন্দর জীবন, সুন্দর পৃথিবীর স্বপ্ন লালন করতেন। করোনার ছোবলে আজকে তারা মৃত্যুবরণ করছেন। আজকে যে সামাজিক বিচ্ছিন্নতা তৈরীর প্রয়োজনিয়তা দেখা দিয়েছে, মনে রাখতে হবে আপাত এ সংকটে তা প্রতিষেধক হলেও মানুষে মানুষে সংযোগ, মানুষের পাশে মানুষ, হাতের সাথে হাত, পায়ে পা মিলিয়েই কেবল আমরা একে মানবিক বিশ্বে রূপান্তরিত করতে পারি। বিচ্ছিন্নতা নয়, সংযুক্তি, ঐক্য। যুথবদ্ধতাই মুক্তির পথ। আজকে এ আলোকপ্রজ্বালন আমাদের মধ্যে সংযুক্তির সে বোধ তৈরী করবে, আমরা এ অন্ধকার থেকে আলোয়ে ফিরে যাবো এটাই প্রত্যাশা।

 

সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ভবানী শংকর রায বলেন, ২০১৩ সালের ৬ মার্চ তানভীর মুহাম্মদ ত্বকীকে হত্যা করা হয়। এর দুইদিন পর ৮ মার্চ শীতলক্ষ্যা নদী থেকে আমরা তার লাশ উদ্ধার করি। এ হত্যাকা-ের পর থেকে বিচারের দাবিতে প্রতি মাসের ৮ তারিখে আমরা নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট আলোকপ্রজ্বালন কর্মসূচি পালন করে আসছি। সরকারের বৈষম্যমূলক বিচার ব্যবস্থার কারণে দীর্ঘ সাত বছরেও এ হত্যার বিচার হয়নি। আজকে আমরা এমনি এক বাস্তবতায় এসে উপনীত হয়েছি, যখন প্রত্যেককে স্ব-স্ব গৃহে অবস্থান করাটাই সবচেয়ে জরুরী কর্তব্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। আরতাই ত্বকী হত্যার ৮৫ মাস উপলক্ষে আমরা ত্বকীর সাথে সাথে স্মরণ করছি সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে নিহতদের। নিজ নিজ গৃহে থেকে আমরা সকলে সবার সাথে যুক্ত হয়েছি।

 

নিজ নিজ অবস্থানে থেকে এ কর্মসূচিতে অংশ নেন সন্ত্রা নির্মূল ত্বকী মঞ্চের সদস্য সচিব হালিম আজাদ, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ভবানী শংকর রায়, সাধারণ সম্পাদক শাহীন মাহমুদ, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি মাহবুবুর রহমান, সাবেক সভাপতি হালিম আজাদ, নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, খেলাঘর নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি রথীন চক্রবর্তী, সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি জিয়াউল ইসলাম, উদীচী জেলা সভাপতি জাহিদুর হক দীপু, সমগীতের সভাপতি অমল আকাশ, সিপিবি জেলা সভাপতি হাফিজুল ইসলাম, গণসংহতি আন্দোলন জেলার সমন্বয়ক তরিকুল সুজন, বাসদ জেলা কমিটির সমন্বয়ক নিখিল দাসসহ আরো অনেকে। 

 

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ৬ মার্চ নগরীর শায়েস্তা খান রোডের বাসা থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হয় মেধাবী ছাত্র তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী। দু’দিন পর ৮ মার্চ শীতলক্ষ্যা নদীর কুমুদিনী শাখা খাল থেকে ত্বকীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই বছরের ১২ নভেম্বর আজমেরী ওসমানের সহযোগী সুলতান শওকত ভ্রমর আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে জানায়, আজমেরী ওসমানের নেতৃত্বে ত্বকীকে অপহরণের পর হত্যা করা হয়। এর পর থেকে ত্বকীর হত্যার বিচার শুরু ও চিহ্নিত আসামীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে প্রতি মাসের ৮ তারিখ আলোকপ্রজ্জা¡লন কর্মসূচি পালন করে আসছে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট।
 

এই বিভাগের আরো খবর