মঙ্গলবার   ২৬ মার্চ ২০১৯   চৈত্র ১২ ১৪২৫   ১৯ রজব ১৪৪০

ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে ও রগ কেটে হত্যা, আটক ৪

প্রকাশিত: ১৪ মার্চ ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : রূপগঞ্জে সোহেল মিয়া ( ২৮) নামে  এ ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে ও পায়ের রগ কেটে হত্যা করেছে দুর্র্বৃত্তরা। এঘটনায় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৪ ব্যক্তিকে আটক করেছে। 

আটককৃতরা হলো-  নিহত সোহেলের বন্ধু সিরাজ, মজিবুর, হাসান ও ইউছুফ। বৃহস্পতিবার সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরন করে পুলিশ। 

এর আগে বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার ভোলাব ইউনিয়নের টাওরা শিমুলতলী এলাকায় এ হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটে। নিহত সোহেল ওই এলাকার মুজিবুর রহমানের ছেলে ও ভোলাব ইউনিয়ন ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক। 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে,  বুধবার রাত সাতটার দিকে সোহেলের বন্ধু একই এলাকার মৃত নুরউদ্দিনের ছেলে সিরাজ তাকে বাড়ি থেকে ডেকে পাশ্ববর্তি সৈবুলের বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। 

সেখান থেকে ফেরার পথে স্থানীয় তমুর লাউয়ের মাচা, মোশারফের বাড়ি ও লালমিয়ার বাড়ির সামনে আলাদা ৩ টি স্পটে ২০/২৫ জন ব্যক্তি ওৎপাতে। তারা প্রথমে তমুর লাউয়ের মাচার সামনে সোহেলের উপর হামলা চালায়। 

এ সময় প্রান বাঁচাতে সোহেল দৌড়াতে শুরু করলে লালমিয়ার বাড়ির সামনের গলিতে তাকে ফের হামলা করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে। হত্যাকারীরা মৃত্যু নিশ্চিত করতে তার দুটি পায়ের রগ কেটে ফেলে। পরে রাস্তার পাশে ফেলে রেখে চলে যায়। 

খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় প্রথমে নরসিংদী সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান তিনি।

নিহত সোহেল মিয়ার বাবা মুজিবুর রহমান বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংশার জেরে স্থানীয় বিএনপির কর্মীরা আমার ছেলেকে রগ কেটে ও পিটিয়ে হত্যা করেছে।

এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহমুদ হাসান বলেন, ঘটনাটি পূর্ব শত্রুতার কারনে ঘটতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে। গত দু’সপ্তাহ পূর্বে সোহেলের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও নারী নির্যাতনের অভিযোগে মামলা হয়েছিল। হত্যাকান্ডের সাথে সে ঘটনার যোগসূত্র আছে কিনা সেটা তদন্ত করছে পুলিশ। 
 

এই বিভাগের আরো খবর