বৃহস্পতিবার   ২৮ মে ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৭   ০৫ শাওয়াল ১৪৪১

গার্মেন্টস কারখানা চালু রাখাটা হবে আত্মঘাতী : মাহমুদ হোসেন

প্রকাশিত: ৩ এপ্রিল ২০২০  

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি (যুগের চিন্তা ২৪) : করোনা সংক্রমণের বিস্তার রোধে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মতো দেশের সকল গার্মেন্টস কারখানাসমূহ অনতিবিলম্বে বন্ধ ঘোষণা করার আহ্বান জানিয়েছেন বিপ্লবী গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা মাহমুদ হোসেন। একই সাথে তিনি দরিদ্র মানুষের অসহায়ত্বের কথা বিবেচনা করে আগামী ৬ মাসের জন্য এনজিও ক্ষুদ্র ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ রেখে তা মওকুফ করে দেবারও দাবি জানান।


তিনি বলেন, মরণঘাতী করোনার ভয়াবহ সংক্রামণ রোধ করতে জনগণকে সামাজিক দূরত¦ বজায় রাখার পরামর্শ দিয়ে গার্মেন্টস কারখানা চালু রাখাটা হবে আত্মঘাতী। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যেখানে সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করতে লকডাউন, কারফিউ এমন কি রাস্তায় দেখা মাত্র গুলি করার নির্দেশ দিচ্ছে সেখানে বাংলাদেশে গার্মেন্টসের মতো শ্রমঘন প্রতিষ্ঠান চালু রাখা কোন ভাবেই সমিচিন হবেনা।


শুক্রবার (৩ এপ্রিল) বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির উদ্যোগে শহরের নাগবাড়ি এলাকায় গার্মেন্টস শ্রমিক, দিনমজুরসহ অসহায় দুস্থ মানুষদের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে তিনি এসব কথা বলেন।


মাহমুদ হোসেন বলেন, ইতোপূর্বে স্বাস্থ্যবিধির নামে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে প্রবেশের সময় শুধুমাত্র ব্লিচিং পাউটার মিশ্রিত পানি দিয়ে হাত ধৌত করিয়ে এবং বিগত পুরো সময় নিজস্ব প্রতিষ্ঠানের সাধারণ টি-শার্টের ফেব্রিক্স দিয়ে তৈারকৃত একটি বিশেষ মাক্সই দেয়া হয়েছে। ব্যাতিক্রম ছাড়া এই হলো বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্পকারখানার স্বাস্থ্যবিধির মেনে কারখানা চালু রাখার বাস্তবতা। অতএব করোনা সংক্রমণের বিস্তার রোধে সরকারের প্রণোদনাভোগী এই গার্মেন্টস শিল্পকে বাধ্যতামূলক বন্ধ রাখার ঘোষণা দিতে হবে। নয়তো ইউরোপ-আমেরিকার মতো বাংলাদেশেও করোনার ভয়াবহ সংক্রামণ ও মৃত্যুর মিছিল শুরু হলে এর দায় দায়িত্ব সরকারসহ বিকেএমইএ ও বিজেএমইএকেই নিতে হবে।


বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির চলমান খাদ্য সহায়তা কর্মসূচি অংশ হিসাবে প্রত্যেককে চাল, ডাল, তৈল, আলু, পেঁয়াজসহ প্রায় ১৩ কেজি পরিমাণ খাদ্রসামগ্রী প্রদান করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, বিপ্লবী গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্রমিকনেতা সাইফুল ইসলাম, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির অন্যতমনেতা হাবিবুর রহমান আঙ্গুর, রোকসানা বেগম, গার্মেন্টস শ্রমিকনেতা মোহাম্মদ আলী প্রমুখ।

এই বিভাগের আরো খবর