শুক্রবার   ২২ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৮ ১৪২৬   ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

কোরবানির কথা মাথায় আসলেই ভয় লাগে : আবুল কাউসার আশা

প্রকাশিত: ২০ আগস্ট ২০১৮  

স্টাফ রিপোর্র্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : আবুল কাউসার আশা। নারায়ণগঞ্জের স্বনামধন্য রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। পারিবারিকভাবেই রাজনীতিতে চলে আসেন ক্রিকেট পাগল আশা। বাবা সাবেক সংসদ সদস্য এড. আবুল কালাম। আশার মতে রাজনীতিতে এখন আর শিষ্ঠাচার মূল্যবোধের চর্চা হয় না। মানুষকে হুটহাট বিশ্বাস করে ফেলাকে নিজের চরিত্রের মন্দদিক হিসেবে বিবেচনা করলেও শেষ পর্যন্ত মানুষের বিশ্বাস অর্জন করেই মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্য হয়ে উঠতে চান। যুগের চিন্তা ২৪ এর এবারের ঈদ আড্ডায় কথা বলেছেন মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের এই সভাপতি। যুগের চিন্তা ২৪ এর পাঠকদের জন্য আড্ডার অংশ বিশেষ তুলে ধরা হলো।

যুগের চিন্তা: কেমন আছেন?

আশা: এই পরিস্থিতিতে গুটি কয়েক মানুষ ছাড়া কেউ ভাল নেই।

যুগের চিন্তা: এই পরিস্থিতির কথা বলছেন, এই পরিস্থিতিকে কীভাবে মূল্যায়ণ করবেন?

আশা: স্বাধীন রাষ্ট্রে স্বাধীনতার আগের মতো বর্বর সময় পার করছি।

যুগের চিন্তা: এবার ঈদের পরিকল্পনা কী? কোথায় ঈদ করছেন?

আশা: নবীগঞ্জে নিজ বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে ঈদ করবো। তবে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি কোথায় নিয়ে ঈদ করায় এটা আল্লাহ ভাল জানেন। অনেকদিন পরিবারকে সময় দেয়া হয় না। ইচ্ছে আছে এবার ঈদের পর পরিবারকে সময় দেবো।

যুগের চিন্তা: কোরবানির ঈদ নিয়ে শৈশবের কোন স্মৃতি আছে?

আশা: কোরবানির কথা মাথায় আসলেই ভয় লাগে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত যা একটা ব্যস্ততা যায়! শৈশবের ঈদটা আরো অনেক রঙ্গিন ও পবিত্র ছিলো।

যুগের চিন্তা: কেমন করে রাজনীতিতে চলে আসলেন, আর কেমন করেই বা স্বেচ্ছা সেবকদলের সভাপতি?

আশা: এটা বলতে গেলে আরো একটু আগে থেকে শুরু করতে হবে, আমার দাদা মরহুম জালাল হাজি সাহেব বাবা চাচা সবাই পারিবারিকভাবে জাতীয়তাবাদী রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। পারিবারিকভাবেই হয়তো রক্তেই এই দলের আদর্শ মিশে ছিলো। ৪ নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সাধারণ সদস্য হিসেবে ১৯৯৬ সালে ছাত্রদল শুরু করি। ২০০২ সালে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলাম। ২০০৩ সালে নারায়ণগঞ্জ কলেজের নির্বাচিত ভিপি হলাম। ২০০৪ এ শহর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক। তারপর মহানগর ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ও সর্বশেষ মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি।

যুগের চিন্তা: রাজনীতিতে প্রাপ্তি কতটুকু?

আশা:  শুরু  থেকে আজ পর্যন্ত যদি বলি রাজনীতিটা এক যায়গায় নেই। রাজনীতিতে এখন আর শিষ্ঠাচার মূল্যবোধ নেই। রাজনীতিটা এখন অপরাজনীতিতে পরিণত হয়েছে। রাজনীতিতে এখন অবৈধ অস্ত্র আর টাকার খেলা।  প্রাপ্তি বলতে, এই যে আপনি ইন্টারভিউ নিচ্ছেন এটাও একটা প্রাপ্তি (হাসি) মানুষের কাছে যেতে পেরেছি। তাদের কাছ থেকে সম্মান পেয়েছি।

যুগের চিন্তা: হারিয়েছেন কী রাজনীতিতে?

আশা: অজস্র হারিয়েছি। ১৫ বিশ মিনিটে বলে শেষ করা যাবে না।

যুগের চিন্তা: রাজনীতি করতে গিয়ে করাবরন করেছেন?

আশা: ২ বার কারাগারে ছিলাম। মামলা গুনে দেখিনি।

যুগের চিন্তা: আপনার পরিবারের কথা বলুন।

আশা: পরিবারে বাবা মা বড় বোন এবং আমি। আমার ছোটবোন আইনজীবি।

যুগের চিন্তা: নিজের মন্দদিকগুলো কী কী?

আশা: আমি মানুষকে খুব সহজেই বিশ্বাস করে ফেলি এবং রেগে যাই এগুলো মন্দদিক।

যুগের চিন্তা: আর ভালো দিক?

আশা: না তেমন কোন গুন নেই (হাসি)। তবে এই যে মানুষকে বিশ্বাস করি এটাও কিন্তু একটা ভাল দিক।

যুগের চিন্তা: রাজনীতিবিদ না হলে কী হতেন?

আশা: (হাসি) এটা কিন্তু কঠিন প্রশ্ন। কারণ শৈশব থেকেতো রাজনৈতিক পরিবারের মধ্যেই বেড়ে উঠা তাই সেভাবে ভেবে দেখিনি। তবে হ্যা, হয়তো আপনার ইন্টারভিউ নিতাম ।

যুগের চিন্তা: অবসর কীভাবে কাটান?

আশা: আমার সবসময় পছন্দ ক্রিকেট খেলা। এখনো সময় পেলেই ক্রিকেট খেলি। বাসায় একা একা থাকলে ঘন্টার পর ঘন্টা একা একা ব্যাটিং করি। অনেকেই বিরক্ত হয়ে যায়। কাউকে পেলেই বলি বল কর বল কর। পালিয়ে থাকলেও গাড়ির মধ্যে একটা ব্যাট থাকে। এটা আমার পেশন বলুন শখ বলুন সবই।

যুগের চিন্তা: নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে ঈদ শুভেচ্ছায় যদি কিছু বলতে চান।

আশা: সকলকে প্রথমেই ঈদের শুভেচ্ছা। সকলের উদ্দেশ্যে আহ্বান থাকবে ধৈর্য ধরুন, আদর্শটা ঠিক রাখুন আর মাথা উঁচু করে চলুন।

যুগের চিন্তা: বিএনপির শীর্ষ নেতাদের উদ্দেশ্যে কিছু বলার আছে?

আশা: সকলের ভাবনাটাতো মনোনয়ণ কেন্দ্রীক। যিনি মনোনয়ন দেবেন তিনিইতো কারাগারে। আগে আসুন সকলে মিলে তাকে মুক্ত করি, দেশের স্বাধীনতাকে পুণরুদ্ধার করি তারপর নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগীতা করা যাবে।

যুগের চিন্তা: ধন্যবাদ আপনাকে। যুগের চিন্তা পরিবারের পক্ষ থেকে ঈদের শুভেচ্ছা নিবেন।

আশা: আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ। আমার পরিবারের পক্ষ থেকে এবং স্বেচ্ছাসেবক দলের পক্ষ থেকে যুগের চিন্তা পরিবার ও নারায়ণগঞ্জবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা।  

এই বিভাগের আরো খবর