শনিবার   ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৯ ১৪২৬   ১৬ রবিউস সানি ১৪৪১

কিসের ভাই কিসের এমপি, কোনো ভাইয়ের শ্লোগান চলবে না : জাহাঙ্গীর 

প্রকাশিত: ১১ নভেম্বর ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেছেন, একসময়  যুবলীগের নির্বাচিত সভাপতি ছিলাম, নেতৃত্ব দিয়েছি।

 

আমরা  শ্লোগান দিয়েছি, বঙ্গবন্ধুর শ্লোগান দিয়েছি, শেখ হাসিনার শ্লোগান দিয়েছি, তখন বলেছি শেখ হাসিনার কিছু হলে জ্বলবে আগুন ঘরে ঘরে। শ্লোগান ধরেছি আওয়মীলীগের নামে, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নামে। 

 

আজকে কিছুক্ষণ আগে যুবলীগের কয়েকজন অনুষ্ঠান করে গিয়েছে। যাদের শ্লোগান ছিল, অমুক ভাইয়ের কিছু হলে জ্বলবে আগুন ঘরে ঘরে। অমুক ভাইয়ের সৈনিক, আমরা আছি তোমার সাথে। এই শ্লোগান দিলে চলবে না। যুবলীগ ভাইদের উদ্দেশ্যে বলছি, সঠিক যুবলীগ করেন। নেতৃত্ব দিবেন সঠিক, শ্লোগান হবে শেখ হাসিনার। অমুক ভাই এগিয়ে চল, কিসের ভাই ? কিসের এমপি? কোন ভাইয়ের শ্লোগান চলবে না। 

 

সোমবার (১১ নভেম্বর) সকাল ১০টায় আওয়ামী যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ২নং রেলগেইটস্থ  আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে নারায়ণগঞ্জ শহর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আহম্মেদ আলী রেজা উজ্জলের উদ্যোগে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

 

এছাড়াও দলীয় কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে নেতাকর্মীরা পুস্পস্তবক অপর্ণ করেন এসময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপিত ও জেলা যুবলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদির। 

 

প্রসঙ্গত, এরআগে নারায়ণগঞ্জ শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনুর উদ্যোগে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে চাষাড়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে একটি বণার্ঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। এসময় বিভিন্ন শ্লোগানে মুখরিত হয় রাজপথ। 


পরে দলীয় কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অপর্ণ শেষে আলোচনা সভা ও কেক কেটে অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।  এরপর পরই সাধারণ সম্পাদক আহম্মেদ আলী রেজা উজ্জলের সভাপতিত্বে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠানটি শুরু করা হয়।

 

তিনি আরো বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার কথা বলতে হবে। শেখ হাসিনা থাকলে যুবলীগ, ছাত্রলীগ, আওয়ামীলীগ আমরা বেঁচে থাকবো। যুবলীগ ভাইদের  উদ্দেশ্যে  বলতে চাই, আমিও চুনকা ভাইয়ের রাজনীতি করেছি,    তিনি আমার গুরু, আমি তার শিষ্য।

 

তিনিও বলেছেন কোন ভাইয়ের শ্লোগান দিবি না। দিতে হলে বঙ্গবন্ধুর শ্লোগান দিবি, শেখ হাসিনার শ্লোগান হবে, আওয়ামীলীগের শ্লোগান হবে। আজকে যারা আমরা আওয়ামীলীগ করি, একসময় আমরা ছাত্র রাজনীতি করেছি, এখন জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক হয়েছি। মেয়র ডা. সেলিনা হায় আইভীর কারণে তাই কৃতজ্ঞতা জানাই।

 

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আদিনাথ বসু, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক নিজামউদ্দিন আহমেদ, ১৫ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের বিপ্লব বসু, ৩ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদর মকবুল হোসেন, সৈকত মেম্বার, মহানগর সৈনিক লীগের সভাপতি মকসুদুর রহমান জাবেদ, যুবলীগ নেতা হিমেল খান,  রনি, টিটু, হুমায়ূন খান, আলী হায়দার সাগর, আমির হোসেন প্রমুখ।

এই বিভাগের আরো খবর