মঙ্গলবার   ২০ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৫ ১৪২৬   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

কমিটি নিয়ে মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাদের দৌড়ঝাঁপ

প্রকাশিত: ১৩ মে ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : অক্টোবরে আওয়ামী লীগের ২১তম কেন্দ্রিয় কাউন্সিলের আগে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন হতে পারে এমন সংবাদে নড়ে বসেছেন নেতৃবৃন্দ। বর্তমান কমিটিতে স্থান পাওয়া নেতারাসহ  কমিটিতে স্থান পাননি এমন নেতারাও নানা জায়গায় দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন বলে জানিয়েছে একটি সূত্র। 

 

বর্তমান কমিটির কয়েকজন নেতা অভিযোগ করে জানান, নতুন কমিটি আসতে পারে এমন সংবাদ চাউর হওয়ার পরপরই বর্তমান কমিটির অনেক নেতা নানা প্রচার-অপপ্রচার শুরু করে দিয়েছেন। এখানে তারা নানা বলয়ের আধিক্য তৈরির চেষ্টা করছেন। 

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মহানগর আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানান, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক নিজেকে মহানগর আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য সভাপতি হিসেবে নিশ্চিত বলে দাবি করছেন। তিনি প্রচার করছেন, নেত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী জনপ্রতিনিধি হিসেবে থাকা ব্যক্তি দলীয় কোন গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকতে পারবেননা। সাংসদ, মেয়র, কিংবা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান তো থাকতেই পারবেননা। সেহুতু মহানগর আওয়ামী লীগ কমিটিতে তিনিই একমাত্র শক্তিশালী ও যোগ্য দাবিদার সভাপতি হওয়ার। একই সাথে তিনি সমর্থন যোগানোর জন্য বর্তমান কমিটির অনেককে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। এছাড়া তিনি প্রচার করছেন মহানগর আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে চলে যাচ্ছেন।

 

তবে মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি হতে পারে এমন সংবাদে আরো কয়েক নেতাও সভাপতি পদের জন্য বেশ জোরেসোরে নামতে পারেন। জানা গেছে, শেষ পর্যন্ত যদি নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের মুরুব্বি হিসেবে পরিচিত আনোয়ার হোসেন কেন্দ্রিয় রাজনীতিতে যুক্ত হন তবে বর্তমান কমিটির সহসভাপতি শেখ হায়দার আলী পুতুল, বাবু চন্দন শীল, জেলা যুবলীগের সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল কাদির, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য ও আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এড.আনিসুর রহমান দিপু সভাপতি পদে সমর্থন পেতে চাইবেন। এব্যাপারে তারা কেন্দ্রীয়ভাবেও যোগাযোগ অব্যাহত রাখতে পারেন, তবে সেটি অতি গোপনে। 

 

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের নড়াচড়ার উপর নির্ভর করে সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতে পারে। যদি আনোয়ার হোসেনকেই মহানগর সভাপতি করা হয়, তবে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে খোকন সাহাকেই সন্তুষ্ট থাকতে হতে পারে। তবে পথ নির্ঝঞ্চাট নয়। সেক্রেটারি পদেও তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হতে পারে খোকনসাহাকে। খোকন সাহার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বি হতে পারে আনোয়ার হোসেনের অত্যন্ত বিশ্বস্ত বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জিএম আরমানকে।

 

সূত্র জানিয়েছে, এই আরমানের মাধ্যমেই বর্তমান কমিটির বন্দরের ৯টি ওয়ার্ডে সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম পুরোপুরি সমাপ্ত করতে পেরেছে। এছাড়া নগরীতেও আরমানের ভালো প্রভাব রয়েছে। কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি করা হলে সবার আগে সেক্রেটারি পদে আরমানকেই এগিয়ে রাখছেন নেতাকর্মীরা। তবে তিনিই যে একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী তাও নয় সেক্রেটারি পদে বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহনিজাম এবং সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলালও বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করছেন বলে জানিয়েছে একটি সূত্র। 

 

এদিকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান কমিটির আহসান হাবিব তো রয়েছেনই। এছাড়া তার সাথে যুক্ত হতে মহানগর আওয়ামী লীগের আরো কয়েক নেতাও নড়েচড়ে বসেছেন। ক্লিন ইমেজের নারী নেত্রী হিসেবে পরিচিত বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদা মালা, জিএম আরাফাত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে থাকার চেষ্টা করবেন। 

 

মহানগর আওয়ামী লীগের কয়েকটি সূত্র জানিয়েছে, ২০১৩ সালের ১১ সেপ্টেম্বর মহানগর আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটি ঘোষণার পর এ পর্যন্ত ৯ বছরে মহানগর আওয়ামী লীগের ৮টি ওয়ার্ডে কমিটি আছে। তবে বন্দরের ৯টি ওয়ার্ডেও কমিটি চূড়ান্ত হওয়ার পথে।  নগরী ও সিদ্ধিরগঞ্জের ওয়ার্ডগুলোতে ওয়ার্ড কমিটিগুলোর কাজও অনেকদূর এগিয়েছে।

 

চারমাস পর কেন্দ্রীয় কাউন্সিল। এরআগে যদি ওয়ার্ড কমিটিগুলো শেষ করার প্রয়োজনীতা অবশ্য অনুভব করছেন বর্তমান কমিটির নেতারা। ওয়ার্ড কমিটিগুলো হলে কাউন্সিলের মাধ্যমে যদি মহানগর কমিটি করা যায় তবে সেটিই সর্বোত্তম পন্থা হয় বলে মনে করেন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। তবে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতি পর্যালোচনা করলে সেটি হওয়ার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ বলে মনে করেন তৃণমূল।

 

তাদের ধারণা শেষতক পুুরো কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ীমী লীগ সভানেত্রীর উপরই গিয়ে বর্তাবে। তবে যে কোন কমিটিতে আধিপত্য রাখতে স্থানীয় এক এমপি সবসময়ই নাক গলান। এখানেও তার ব্যাত্যয় ঘটবেনা বলে মনে করেন আওয়ীমী লীগের তৃণমূল। তবে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী ডা.দিপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার নওফেল নারায়ণগঞ্জের কমিটি গঠনের ব্যাপারে কাজ করছেন বিধায়ই তা ওতো সহজ বিষয় হবেনা বলেও আস্থা রয়েছে তৃণমূলের। 
 

এই বিভাগের আরো খবর