বৃহস্পতিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৪ ১৪২৬   ১৯ মুহররম ১৪৪১

কবি ও সাংবাদিক হালিম আজাদের জন্মদিন আজ

প্রকাশিত: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি, সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের সদস্য সচিব ও কবি হালিম আজাদের ৬৫তম জন্মদিন আজ। ১৯৫৫ সালের এই দিনে তিনি ফতুল্লার বক্তাবলী ইউনিয়নের মধ্যনগর গ্রামে কৃষি ও সংস্কৃতিমনা এক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। 


পিতা মোহাম্মদ হাকিম আলী ছিলেন বৈঠকী গানের শিল্পী। মাতার নাম আমেনা খাতুন। চৌদ্দ ভাই বোনের মধ্যে সবার ছোট হালিম আজাদ। তিনি কানাইনগর ছোবহানিয়া হাই স্কুল থেকে এসএসসি, তোলারাম কলেজ থেকে এইচএসসি ও বিএ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএ সম্পন্ন করেন।


নারায়ণগঞ্জের গণ্ডি ছাড়িয়ে বাংলাদেশের সাহিত্য, সংস্কৃতি ও সাংবাদিকতায় এক পরিচিত নাম হালিম আজাদ। ১৬ বছর বয়সেই তিনি কিশোর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। বক্তাবলী প্রতিরোধ যুদ্ধসহ বেশ কয়েকটি অপারেশনে তিনি অংশ নেন।


১৯৬৭ সালে অষ্টম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় ছাত্র ইউনিয়নে যোগদানের মধ্য দিয়ে তিনি ছাত্র রাজনীতি শুরু করেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার বিচারের দাবিতে সোচ্চার ছিলেন হালিম আজাদ। ১৯৭৭ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার প্রতিবাদে ‘পৃথিবীর কাছে নোটিশ’ শিরোনামে কবিতাগ্রন্থ প্রকাশিত হয়।  পরে হালিম আজাদসহ এ বই প্রকাশনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে তৎকালীন সরকার মামলা দায়ের করেন। এ মামলার ওয়ারেন্ট বের হলে তিনমাস আত্মগোপনে থাকতে হয় তাকে।


১৯৮৬ সালের ৭ ডিসেম্বর ঢাকা থেকে প্রকাশিত সাহিত্য-সংস্কৃতি বিষয়ক ম্যাগাজিন ‘সন্ধ্যানী’তে ‘গণতন্ত্র-১৯৮৬’ কবিতাটি প্রকাশিত হয়। অবৈধ ক্ষমতা দখলকারী স্বৈরাচারী জেনারেল এরশাদ বন্দুকের জোড়ে ক্ষমতায় বসার প্রতিবাদ করে তিনি এ কবিতাটি লেখেন। পরে এ কবিতাটি লেখার অপরাধে ১৯৮৬ সালের ১৫ ডিসেম্বর দুপুরে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট এরশাদের নির্দেশে সেনাবাহিনীর সদস্যরা তার অফিস ‘বাংলার বাণী’ থেকে তুলে নিয়ে যায়। কয়েক ঘন্টা হোটেল শেরাটনের পাশে সেনাক্যাম্পে চোখ বেঁধে নির্যাতন চালানোর পর তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় বঙ্গবভনে এরশাদের কাছে। সেখানে এরশাদ তার অফিস কক্ষে ৩৭ মিনিট ধরে অপমানসূচক কথাবার্তা ও হুমকি প্রদান করেন। বিকেলে গাড়িতে করে সেনা সদস্যরা তাকে অফিসের সামনে নামিয়ে দিয়ে যায়।


খুব ছোটবেলা থেকেই লেখালেখিতে আগ্রহ ছিল তার। কবিতা, উপন্যাস, গল্প, জীবনীসহ এ পর্যন্ত তার লেখা গ্রন্থের সংখ্যা ২৮। ১৯৭৭ সালে একটি গানের দলে যোগ দিয়ে দীর্ঘদিন গান করেন। সাংবাদিকতা পেশায় প্রবেশ করেন ১৯৭৯ সালে দৈনিক বাংলার বাণী পত্রিকায় স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে। এরপর থেকে গত ৩৪ বছর ধরে দৈনিক যুগান্তর, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস), চ্যানেল আই, সাপ্তাহিক বিচিত্রা এবং পুনরায় বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থায় যোগদান করেন। ছিলেন বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার প্রধান বার্তা সম্পাদক। বর্তমানে তিনি বিশেষ সংবাদদাতা হিসেবে কর্মরত। জাতীয় প্রেসক্লাবের স্থায়ী সদস্য হালিম আজাদ নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের তিন বার সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। কবি হালিম আজাদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী হিসেবে আমেরিকা, ভারত, ইতালি সফর করেন।


বাংলা সাহিত্যে বিভিন্ন শাখায় অবদান রাখার জন্য হালিম আজাদ পেয়েছেন একাধিক জাতীয় পুরস্কার। উল্লেখযোগ্য পুরস্কার হল- জাতীয় প্রেসক্লাব সাহিত্য পুরস্কার, চ্যানেল আই আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার, শ্রুতি সাংস্কৃতিক একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার, চারণ সাহিত্য পুরস্কার, ঢাকা, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি সাহিত্য পদক, আবুল হাসেম হাসু সাহিত্য পুরস্কার, মধুসূদন পদক ২০১৫, পদক্ষেপ সাহিত্য পুরস্কার, এম নুরুল কাদের শিশু সাহিত্য পুরস্কার ইত্যাদি।


ব্যক্তিগত জীবনে তিনি স্ত্রী ফাহমিদা আজাদ, মেয়ে আজমাইন আজাদ কথা এবং ছেলে  কৌশিক আজাদকে নিয়ে পারিবারিক জীবন আতিবাহিত করছেন। সাদামাটা জীবনযাপনে অভ্যস্ত হালিম আজাদ বরাবরই প্রতিবাদী চরিত্রের অধিকারী। মানবতার জয়গান গাওয়া, অসাম্প্রদায়িকতার কথা বলা, শোষিতের পক্ষে লড়াই করে যাওয়া হালিম আজাদ নারায়ণগঞ্জসহ সারাদেশে এক প্রতিবাদী কণ্ঠস্বরের নাম। 


২০১৩ সালের ৬ মার্চ নগরীর শায়েস্তা খান রোডের বাসা থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হয় নারায়ণগঞ্জের মেধাবী কিশোর তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী। এর দু’দিন পর ৮ মার্চ শীতলক্ষ্যা নদীর কুমুদিনী শাখা খাল থেকে ত্বকীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ হত্যার প্রতিবাদে গঠন করা হয় ‘সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চ’। নিহত ত্বকীর পিতা ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রফিউর রাব্বি এ সংগঠনের আহ্বায়ক এবং হালিম আজাদ দায়িত্ব পালন করছেন সদস্য সচিব হিসেবে। নারায়ণগঞ্জের প্রভাবশালী হিসেবে পরিচয়দানকারীদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে দৃঢ় কণ্ঠে প্রতিবাদ করে যাচ্ছেন ত্বকী হত্যাসহ সকল হত্যাকাণ্ড, অন্যায় এবং অবিচারের বিরুদ্ধে।


যুগের চিন্তা পরিবারের পক্ষ থেকে এ  সংগঠক, কবি ও সাংবাদিক হালিম আজাদকে জন্ম দিনের শুভেচ্ছা। শুভ জন্মদিন হালিম আজাদ!

এই বিভাগের আরো খবর