বৃহস্পতিবার   ১৪ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ৩০ ১৪২৬   ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

ওয়াসার ত্রুটিযুক্ত ব্যবস্থাপনাই নাসিকের চ্যালেঞ্জ

প্রকাশিত: ৪ নভেম্বর ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : পানি অপর নাম জীবন। যেখানে পানির উপর নাম জীবন সেখানে নারায়ণগঞ্জ শহরে সেই পানি যেন মৃত্যুকূপ। পান করার পানি ময়লা ও জীবাণুতে মিশ্রিত। ওয়াসার পানির দুর্গন্ধ ও ময়লার কারণে একাধিকবার ক্ষোভ প্রকাশ করেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি। ওয়াসা কর্তৃপক্ষকে জানিয়েও যখন কোন সুফল পায়নি নগরবাসী তখন নগরবাসীর পানির সমস্যা দূরীকরণে পানির ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব গ্রহণ করেছে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন।

 

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কাছে সিটি করপোরেশন এলাকার ঢাকা ওয়াসা’র সকল কার্যক্রম হস্তান্তরিত করা হয়েছে। পানির সরবরাহের দায়িত্ব নাসিক গ্রহণের সংবাদে নগরবাসী শীগ্রই সুপেয় পানি পাওয়ায় আশাবাদী। নগরবাসীকে সুপেয় পানি সরবরাহে একাধিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ওয়াসার পানি সরবরাহ ব্যবস্থার ত্রুটিগুলো সমাধান করতে হবে নাসিককে। ওয়াসার ত্রুটিগুলোর সমাধানই নাসিকের নতুন চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন নগরের সচেতন মহল।

 

নগরের সর্বত্র ওয়াসার পানিতে ময়লা ও দুর্গন্ধ। বিভিন্ন এলাকায় সংখ্যা গরিষ্ঠ কিছু বাড়িতে সাব মার্সিবল পাম্প (পানি উঠানোর যন্ত্র) রয়েছে। এসকল বাড়ি থেকে নয়ত নগরের বেশিরভাগ খাবার পানির চাহিদা পূরণ হয় নগরের মসজিদগুলো থেকে। বাধ্য হয়ে ওয়াসার পানি পান না করে বিভিন্ন এলাকার মসজিদ থেকে খাবার পানি সংগ্রহ করে। কিন্তু বিভিন্ন এলাকার ভুক্তভোগী থেকে জানা যায়, ওয়াসার পানিতে ময়লা, দুর্গন্ধ। মাসের মাঝেমধ্যেই পানি সরবরাহ বন্ধ থাকে। আবার পানির লাইনে কোন সমস্যা হলে ওয়াসার অফিসে জানানো হলে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করে না। তাদের জনবল কম, ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সময় লাগবে বলে তারা জানায়। অন্যদিকে পানি সরবরাহের পাইপগুলো অনেক পুরোনো, অধিকাংশ পাইপে লিকেজ। ফলে পানি সরবরাহের সময় পাইপে ময়লা, সুয়ারেজের পানি প্রবেশ করে পানি দূষিত হয়। আবার পানি অনেক সময় পুরোপুরিভাবে পরিশোধিত না করেই সরবরাহ করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।       

 

নগরবাসীকে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করার ক্ষেত্রে এই সকল সমস্যা প্রথমত নাসিকে সমাধান করতে হবে। পানি সরবরাহ সহ যাবতীয় কার্যক্রম সঠিকভাবে সমাধানের জন পর্যাপ্ত পরিমানে জনবহুল ব্যবস্থা করতে হবে। পানি সরবরাহে নতুন পাইপ লাগানোর ব্যবস্থা করতে হবে। একইভাবে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহে পানি পরিশোধনের জন্য পর্যাপ্ত পরিমানে ক্লোরিন সহ অন্যান্য রাসায়নিক দ্রব্যের ব্যবস্থা করতে হবে।

 

বৃহস্পতিবার ৩১ অক্টোবর ঢাকা সোনারগাঁ হোটেল সুরমা হল রুমে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন এলাকার ঢাকা ওয়াসা’র সকল কার্যক্রম নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কাছে হস্তান্তর চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও ঢাকা ওয়াসার পক্ষে এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও সিইও প্রকৌশলী তাকসিম এ খান সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করেন।

 

অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, নাসিকের প্রায় ৮শ কোটি টাকার কাজ ইতিমধ্যে চলমান রয়েছে। ওয়াসা নেওয়ায় জনগন খুশিই হবে। পানি পরিশোধন সংস্থা করা হবে। ওয়াসা থেকে দায়িত্ব নেয়া পর নাসিক কাজ শুরু করবে কিন্তু আমাদের সময় দিতে হবে। জনগণকে বিষয়টি জানিয়ে দেয়া হয়েছে। নাসিক যখন ওয়াসার দায়িত্ব নিবে তখন থেকে ২ বছরের মধ্যে সুপেয় পানি দিতে পারব। ঢাকা ওয়াসার সকল প্রধান সড়কের পানির পাইপ নতুনত্ব করা উদ্যোগ নেয়া হবে। সিটি গর্ভমেন্টকে শক্তিশালী করতে হবে।

 

সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ থেকে জানা যায়, নাসিক মাত্র ওয়াসার দায়িত্ব গ্রহণ করেছে। বর্তমানে নগরে পানি সরবরাহের কার্যক্রম সিটি করপোরেশনের নেতৃত্বে ওয়াসার জনবল ও তাদের ব্যবস্থাপনা দিয়েই হবে। তবে এক বছরের মধ্যে নাসিকের পর্যাপ্ত জনবল ও ব্যবস্থাপনা তৈরী হলে পুরোপুরি নাসিকের আওতায় পানি সরবরাহের করা হবে।

 

নগরবাসী এই বিষয়ে বলেছেন, ওয়াসার পানি সরবরাহ করা নাসিকের জন্য অনেক বড় একটি চ্যালেঞ্জ। অনেক বছর যাবৎ ওয়াসা দূষিত পানি সরবরাহের কারণে সমালোচিত হচ্ছে। এই ব্যবস্থার পরিবর্তন করা খুব সহজ হবে না। কিন্তু মেয়র আইভী এই দায়িত্ব নিয়েছে বলে আমরা আনন্দিত, বিশুদ্ধ পানি পেলে আমরা অনেক উপকৃত হবো। মেয়র যদিও বলেছেন দুই বছর মধ্যে সুপেয় পানি দিবে তবুও আশা করছি শীগ্রই বিশুদ্ধ পানি পাবে নগরবাসী। বিশুদ্ধ পানি নগরবাসীর জন্য হয়ে উঠবে আশীর্বাদ।   

এই বিভাগের আরো খবর