রোববার   ০৫ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২২ ১৪২৬   ১১ শা'বান ১৪৪১

এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র পরিদর্শন করলেন জেলা প্রশাসক

প্রকাশিত: ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : আজ থেকে শুরু হওয়া এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার কয়েকটি কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন।

 

সোমবার (৩ ফেব্রয়ারি) সকালে পরীক্ষা শুরুর পরে সিদ্ধিরগঞ্জ রেবতী মোহন পাইলট স্কুল এন্ড কলেজ, কদমতলী এম ডব্লিউ উচ্চ বিদ্যালয় ও আই ই টি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় পরিদর্শন করেন তিনি।

 

পরিদর্শন শেষে তিনি বলেন,  নারায়ণগঞ্জে পাবলিক পরীক্ষা ভালো হয়। পরীক্ষার কেন্দ্রগুলে পরিদর্শন শেষে উক্ত কথাটির সত্যতা প্রমাণিত হয়। এসময় সংশ্লিষ্ট পরীক্ষা কেন্দ্রের সচিবসহ দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বহী ম্যাজিস্ট্রেটবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 

 

মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমান পরীক্ষা চলবে আগামী ২৭  ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। ২৯ ফেব্রুয়ারি থেকে ৫ মার্চের মধ্যে ব্যবহারিক পরীক্ষা নেয়া হবে।

 

জেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ জেলায় এ বছর এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় ৪৭টি কেন্দ্রে মোট ৩৪ হাজার ২১৮জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করছে।  এর মধ্যে এসএসসি পরীক্ষায় ৩০ হাজার ২৬৩ জন,  দাখিলে  ২ হাজার ৫৩১ জন এবং ভোকেশনালে  ১ হাজার ৪২৪ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করছে। 

 

সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা সম্পূর্ণ করার জন্য সকল শিক্ষাবোর্ড, জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যজিস্ট্রেটদের ছয় দফা নির্দেশনা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মঙ্গলবার (২৮ জানুয়ারি) মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত পৃথক ৬টি পরিপত্র জারি করা হয়।

 

মন্ত্রণালয়ের ছয় নির্দেশনা 
১. এসএসসি, দাখিল এবং এসএসসি ও দাখিল ভোকেশনাল পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা শুরুর কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে কেন্দ্রে প্রবেশ করে আসন গ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে। অনিবার্য কারণে কোনো শিক্ষার্থী দেরি করে কেন্দ্রে আসলে রেজিস্ট্রারের নাম, ক্রমিক নং ও বিলম্বের কারণ উল্লেখ করতে হবে। দেরি আসা পরীক্ষার্থীদের তালিকা অবশ্যই সংশ্লিষ্ট বোর্ডকে জানাবেন কেন্দ্র সচিব।


২. কেন্দ্র সচিব ছাড়া অন্য কেউ পরীক্ষা কেন্দ্রে মোবাইল ফোন বা অননুমোদিত ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করতে পারবেন না। কেন্দ্র সচিব ছবি তোলা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধাবিহীন একটি সাধারণ ফোন ব্যবহার করতে পারবেন।অননুমোদিত মোবাইল ফোন বা ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রে।

 

৩. এসএসসি, দাখিল ও এসএসসি দাখিল ভোকেশনাল পরীক্ষার প্রত্যেক কেন্দ্রে একজন নির্বাহী কর্মকর্তা বা ম্যাজিস্ট্রেট (ট্যাগ অফিসার) নিয়োগ দিতে হবে। তারা ট্রেজারি বা থানা থেকে কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বা তার প্রতিনিধিসহ প্রশ্ন গ্রহণ করে পুলিশ পাহারায় পরীক্ষা কেন্দ্রে নিয়ে যাবেন। নির্বাহী কর্মকর্তা বা ম্যাজিস্ট্রেটের (ট্যাগ অফিসার) উপস্থিতি ছাড়া প্রশ্ন বের করা যাবে না বলেও পরিপত্রে বলা হয়।

 

৪. ট্রেজারী বা নিরাপত্তা হেফাজত থেকে পরীক্ষা কেন্দ্র এমসিকিউ, রচনামূলক বা সৃজনশীল প্রশ্নের সব সেট প্রশ্নই নিতে হবে। সেট কোড পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে জানিয়ে দেয়া হবে। সে অনুযায়ী নির্ধরিত সেটকোডে পরীক্ষা নিতে হবে। কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ট্যাগ অফিসার) এবং পুলিশ কর্মকর্তার উপস্থিতিতে এবং স্বাক্ষর দিয়ে প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খুলতে হবে।

 

৫. এসএসসি, দাখিল ও এসএসসি দাখিল ভোকেশনাল পরীক্ষার সময় ও এর আগে বা পরে পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট কাজের সময় কেন্দ্রে পরীক্ষার্থী ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা ছাড়া অন্যদের প্রবেশ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এসময় পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশকারী অননুমোদিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

৬. কোনো কারণে পরীক্ষা দেরিতে শুরু করতে হলে যত মিনিট পরে পরীক্ষা শুরু হবে পরীক্ষার্থীদের সেসময় থেকে যথারীতি প্রশ্নপত্রে উল্লেখিত নির্ধারিত সময় দিতে হবে।

এই বিভাগের আরো খবর