মঙ্গলবার   ১৬ জুলাই ২০১৯   শ্রাবণ ১ ১৪২৬   ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪০

এই ফিরে আসা আপনাদের-ই জন্যে

প্রকাশিত: ৯ জুলাই ২০১৯  

অনেকদিন দূরে ছিলাম
অভিমানে কিংবা মন খারাপে,
অনেক দিন আপনাদের থেকে
অনেকটা ইচ্ছে করেই সরে ছিলাম;
কখনো যে ফিরে আসবো এভাবে
তা সত্যি-ই ভাবি নি আমি সেভাবে !


এই মায়াভরা কাব্য জগতে
আমার যে আর ফেরা হবে
 সে আমি পারি নি ভাবতে।

 

বহুদিন পর আজ আপনাদের সাথে
কথা হচ্ছে আমার কবিতায় কবিতায়,
অনেকদিন পর আজ আকাশটাকে
মন ভরে চোখ জুড়ে দেখছি জানেন ?
এত দিন তো ইচ্ছেই ছিলো না 
ঐ নীল আকাশ দেখার! 

 

আমি জানি, আপনাদের মাঝেও
কেউ দেখেন, কেউ দেখেন না,
কারো তো আবার আকাশ দেখার
বিন্দুমাত্র ইচ্ছেই থাকে না।

 

আমি চিন্তায় থাকলে কবিতারা
আরো বেশি করে আসে আমার কাছে,
আর আমি কী করি ?


সবই লিখে ফেলি ;
যা দেখি বা না দেখি ,
মূলত কল্পনা বা বাস্তবে
যতকিছু চোখের সামনে ভাসে 
আমি তখন তার সবই লিখে ফেলি।


আপনাদের মধ্যেই কেউ একজন
আমার কাছে জানতে চেয়েছিলেন-
বলেছিলেন কবি আপু আপনি
কার প্রেমে পরে লিখেন এত কবিতা ?


আসলে কি ,ভালোবাসা আমায় 
কবিতা লিখায় নি এভাবে,
কবিতারা বাসিয়েছে ভালো
মায়ায় ভরিয়ে দিয়ে মন নিখুঁত ভাবে ,
আমি কারো পরি নি প্রেমে সত্যিই
কাব্যপ্রেম নিজেই আমাতে পরেছে।

 

এই ব্যস্ত শহর , এই তীব্র ভালো না লাগা
আমায় কবিতা লিখা থেকে 
রেখেছিলো এতদিন অনেকদূরে,
চাইলেও লিখতে পারতাম না,
আর যখন লিখতে আসতাম 
তখন কলম চলতো না।

 

আজ বহুদিন পর কবিতা লিখছি
আপনারা বহুদিন বলেছেন লিখতে,
আর আমি কি না এতদিনে বসেছি লিখতে।

 

এই কবিতাটা শুধুই তাদের জন্যে
যাদের মনের মনিকোঠায় ছিলাম আমি
কিংবা এখনো আছি পছন্দের কবি হয়ে,
যারা এতদিন জোড় করেছেন আমায়,
জানিয়েছেন অপেক্ষায় আছেন অনেক
আমার নতুন কবিতা পড়ার জন্যে।

 

কেউ কি ভাবতে পেরেছেন -
আমার এই কবিতাটির মূলভাব
আর কিছুই নয়, আপনারা-ই হবেন
আপনারা নিজেরা-ই হবেন ?

 

আসলে খুব ব্যস্ত যায় দিন
কবির সাথে কবিতার যে
এত দিনে জমেছে অনেক ঋণ।

 

সবাই-ই প্রশ্ন করেছিলেন-
কবিতা আপু কেমন আছেন ?
কারো কোনো উত্তর এতদিন
আমি পারি নি দিতে ;


আজ বলছি -
আলহামদুলিল্লাহ,অনেক ভালোই আছি,
যেমন থাকা যায় আর কি -
পাশে থাকলে কিছু দুধের মাছি ; 
যাক সে কথা, আপনারা আছেন ভালো ?
আজ তো দিনটা মেঘলা বড়
আকাশটাকে ভীষণ করেছে কালো ।


আপনাদের জন্যেই এই ফিরে আসা
এই হঠাৎ করেই কবিতা লিখে ফেলা।
আজ বর্ষায় নদী গভীর হয়েছে খুব
মাঝি বলেছে চলবে না আর ভেলা,
তবে এবার আর কী করা ?

 
চলি তবে ? দেখা হবে, কথা হবে 
আবার কোনো এক শীত বসন্তে
গ্রীষ্ম কিংবা শরতে ;
নতুবা কোনো এক হেমন্ত বর্ষার দিনে।

 

নাহার রহমান নুপুর