শনিবার   ৩০ মে ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৭   ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

ঈদে ঘরমুখো মানুষের স্রোত, গুনতে হচ্ছে বাড়তি ভাড়া

যুগের চিন্তা ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৩ মে ২০২০  

প্রশাসন থেকে যখন নিজস্ব গাড়ী নিয়ে বাড়ি ফিরতে পারবেন এমন খবরে রাজধানী থেকে ব্যক্তিগত গাড়ি ভাড়া করে ঈদযাত্রা করছেন অসংখ্য মানুষ। গণপরিবহন না থাকলেও বিভিন্ন কৌশলে যে যেভাবে পারছেন ঘরে ফিরছেন।


আজ সকাল থেকেই রাজধানীর গাবতলি, যাত্রাবাড়ী, আব্দুল্লাহপুরসহ মহাসড়কগুলোতে অসংখ্য মানুষকে ঘরে ফিরতে দেখা যায়। তবে সেই তুলনায় গাড়ি কম হওয়ায় অনেকেই বিপাকে পড়ছেন। রেন্ট এ কার কিংবা হঠাৎ বনে যাওয়া ভাড়ায় চালিত প্রাইভেটকারগুলো ইচ্ছেমত ভাড়া নিচ্ছেন যাত্রীদের কাছ থেকে। পুলিশের তৎপরতাও চোখে পড়েনি খুব একটা।


এদিকে, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রবেশদ্বার রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাটে ঘরমুখো হাজারো যাত্রীর ভিড় দেখা যায়। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রী ও ব্যক্তিগত যানবাহনের চাপ আরও বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সড়কে গণপরিবহন না থাকায় ঢাকার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ভেঙে ভেঙে পাটুরিয়াতে এসে গাদাগাদি করে ফেরিতে নদী পার হয়ে দৌলতদিয়াতে আসছেন যাত্রীরা। দৌলতদিয়া প্রান্তের সড়কেও গণপরিবহন না থাকায় ঘাটে নেমে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ঘরমুখো যাত্রীদের চরম ভোগান্তিতে পোহাতে হচ্ছে। এসব যাত্রীরা কয়েকগুণ বাড়তি ভাড়া দিয়ে মোটরসাইকেল, অটোরিকশা, ভ্যান, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসে গন্তব্য যাচ্ছেন।


গত তিন দিন বন্ধ থাকার পর কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের স্রোত নেমেছে এই নৌরুটে। ভোরের আলো ফুটতে না ফুটতেই ফেরিতে যাত্রীদের ভিড় দেখা গেছে। ঢাকা থেকে সড়কপথে শিমুলিয়া ফেরিঘাটে এসে ফেরিতে পদ্মা নদী পার হয়ে কাঁঠালবাড়ী আসছেন যাত্রীরা। তবে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় কাঁঠালবাড়ী এসে বিপাকে পড়তে হচ্ছে তাদের। কেউ পায়ে হেঁটে আবার কেউ ছোট যানবাহনে করে নিজ নিজ গন্তব্যে ছুটে যাচ্ছেন।


সাধারণ মানুষ বলছেন, গাড়িতে সিটের তুলনায় গাদাগাদি করে বেশি ভাড়া দিয়ে ফিরতে হচ্ছে। ফেরিতে সামাজিক দুরত্ব  না মেনেই হুড়োহুড়ি করে উঠছে মানুষ। এতে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বালাই নেই।

 

এই বিভাগের আরো খবর