মঙ্গলবার   ২০ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৫ ১৪২৬   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

আশাতে নাখোশ কামাল সমর্থকরা

প্রকাশিত: ১৫ মে ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : সম্প্রতি বর্তমান মহানগর বিএনপির আংশিক কমিটি পুনর্গঠন করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি আসছে এমন সংবাদ চাউর হয়েছে। আর সেই কমিটিতে পুরোনোদের পাশাপাশি সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধি করতে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সাংসদ আবুল কালামের ছেলে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি ও ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক আবুল কাউসার আশা স্থান পাচ্ছেন এমন সংবাদও জোরেসোরে বিএনপি নেতাকর্মীদের মাঝে আলোচনা হচ্ছে। কালাম সংমর্থকরা এমন সংবাদে বেশ উচ্ছাস প্রকাশ করলেও তাতে নাখোশ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামালের সমর্থকরা। 

 

মহানগর বিএনপির বর্তমান কমিটিতে থাকা কয়েকজন নেতা জানান, ২০১৭ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারির মহানগর বিএনপির আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটি ঘোষণার পর থেকে মূলত কমিটিতে একচ্ছত্র আধিপত্য দেখান এটিএম কামাল। সাবেক সাংসদ ও সভাপতি আবুল কালাম বেশ কয়েকবার মারাত্মক অসুস্থ থাকায় তিনি  নেতাকর্মীদের এটিএম কামালের সাথে যোগাযোগ করতে বলেন। আর সেই সুযোগটি কাজে লাগান কামাল। তিনি পুরো কমিটিতে থাকা নেতাকর্মী ও কমিটিতে স্থান পেতে চাওয়া নেতাকর্মীদের তার কুক্ষিগত করার চেষ্টা করেন।

 

এছাড়া অন্য দলের সাথে আতাঁত করা নেতাদেরও আশ্রয় দেন এটিএম কামাল। সদ্য সমাপ্ত নির্বাচনে তাঁর বিতর্কিত ভূমিকাও নেতাকর্মীরা কামালে প্ররোচনায় মূল রাজনীতি থেকে সরে যায়। যার ফলে অতীতে যে ধরণের সাংগঠনিক দক্ষতার পরিচয় দেখিয়ে আবুল কালাম দুইবার সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন সেটি তার অসুস্থতা এবং তার অবর্তমানে এটিএম কামালের শ্লথ ও উদ্দেশ্যপ্রনোদিত কর্মকান্ডের দরুণ সামনে আসেনি। অথচ আবুল কালামের পিতা হাজী জালাল উদ্দিন ছিলেন বিএনপির প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য।

 

পিতার মতোই যোগ্য উত্তরসুরী হিসেবে আবুল কালাম বিএনপিকে নারায়ণগঞ্জে নেতৃত্ব দিয়েছেন। আবুল কালামের ছেলে হঠাৎ করেই রাজনীতিতে এপর্যন্ত আসেনি। সে ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবকদলের হয়ে রাজনীতিতে নেতৃত্ব দিয়েছে এবং দিচ্ছে।

এখন মহানগর বিএনপিতে আশা কোন গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্বে আসলে কার্যত পুরো কমিটিতেই প্রাণ ফিরে আসবে আর তরুণ ও বিশ্বস্ত নেতৃত্বে মহানগর বিএনপির বর্তমান কমিটির চেয়ে কয়েকগুণ বেশি গতিতে এগিয়ে যাবে। আর এতে এটিএম কামালসহ আরো কয়েকজনের গুরুত্ব খানিক লোপ পেতে পারে এমন শঙ্কাতেই আশার উপর নাখোশ তার নেতাকর্মীরা। যদিও এটিএম কামাল বর্তমানে দেশের বাইরে। তার অনুসারীদের গতিবিধি অনুযায়ী আশা মহানগর কমিটিতে আসছে এমন সিদ্ধান্তে তারা খুশি নন।  

 

এদিকে মহানগর বিএনপির কমিটিতে  আবুল কাউসার আশা গুরুত্বপূর্ণ পদে আসছেন এমন আভাসে বেশ খুশি মহানগর বিএনপির অধিকাংশ নেতাকর্মীই।তারা বলছেন, মহানগর বিএনপিতে আশা যোগ্য ব্যক্তি হিসেবেই প্রবেশ করবেন।

 

রাজনীতি করতে গিয়ে আশার উপর কি নির্যাতন নেমে এসেছিলো তা পুরো নারায়ণগঞ্জসহ দেশবাসী প্রত্যক্ষ করেছে। সাবেক এমপিপুত্র হওয়ার কারণে এবং ছাত্ররাজনীতি থেকে উঠে আসার কারণে সবসময়ই ক্ষমতাসীন দলের রক্তচক্ষুর নজর ছিলো আশার উপর। তবে তা উপেক্ষা করে আশা বরাবরই সরব ছিলেন রাজনীতিতে।

 

মহানগর বিএনপিতে আবুল কাউসার আশা অন্তর্ভূক্ত হলে শুধু যে মহানগর বিএনপির জাগ্রত হবে তা নয়, স্বেচ্ছাসেবকদল, ছাত্রদল, যুবদল, মহিলাদলসহ অন্যান্য অঙ্গসংগঠনগুলোও চাঙা হবে। আশা মহানগর কমিটিতে আসছেন জেনে কেউ বা তাঁর কর্মীসমর্থকরা যদি নাখোশ হন তবে তাতে কিছু করার নেই।   
 

এই বিভাগের আরো খবর