শুক্রবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৪ ১৪২৬   ২০ মুহররম ১৪৪১

আইভীর নড়াচড়ায় শামীমের দৌড়ঝাঁপ

প্রকাশিত: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : একাদশ জাতীয় নির্বাচন সন্নিকটে। শনিবার  আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বোর্ড কমিটির ১ম সভা অনুষ্টিত হয়েছে। এ কমিটির সভাপতি আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তবে মনোনয়ন প্রত্যাশাকে কেন্দ্র করে বেশ আগে থেকেই নড়েচড়ে বসেছে প্রার্থীরা।

নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী নির্বাচনে সিটি করপোরেশনের জনপ্রিয় মেয়র ডা.সেলিনা হায়াৎ আইভীর মতামত একটি বিশেষ প্রভাব ফেলেন বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

সম্প্রতি রাজনৈতিক সভা মিছিল না হলেও রূপগঞ্জে খেলাঘর আসরের সম্মেলন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যান ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-১ আসন (রূপগঞ্জ) সাংসদ গোলাম দস্তগীর গাজী। অনুষ্ঠানে রূপগঞ্জ আওয়ামীলীগ নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।

তবে এ অনুষ্ঠানের পর স্বস্তিতে থাকতে পারেন নি এ আসনে আওয়ামীলীগের আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী রংধনু গ্রুপ ও কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যন রফিকুল ইসলাম রফিক। তাঁর ডাকে সন্ধ্যায় এক অনুষ্ঠানে হাজির হন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান।  সেই অনুষ্ঠানে রফিকুল ইসলাম রফিকের পক্ষে বক্তব্য রাখেন তিনি। সেই অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাইও উপস্থিত ছিলেন।

রাজনৈতিক বোদ্ধারা বলছেন, মূলত নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের গাজীকে ঠেকাতেই রফিকের এ ব্যবস্থা। মনোনয়নকে কেন্দ্র করে এ দুই প্রার্থীর মধ্যে দ্বন্দ্ব বেশ পুরোনো। তবে শামীম ওসমানের নমিনেশন যেখানেই নিশ্চিত না সেখানে তিনি আরেকজনের পক্ষে কি বলবেন? কিন্তু মেয়র আইভীর অবস্থান বেশ শক্ত এবং দৃঢ়। রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে সেভাবে এখন অংশগ্রহণ না করলেও নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী বাঁছাইয়ে মেয়র আইভীর মতাততের বেশ গুরুত্ব পাবে।

জেলার সবকটি আসনেই আওয়ামীলীগ সভানেত্রীর অত্যন্ত প্রিয় মেয়র আইভীর মতামত বিশেষ গুরুত্ববহন করবে এটাই স্বাভাবিক। এ মুহুর্ত্বে মেয়র আইভী যখনই কোথাও যাবেন সেটি বেশ আলোচনায় আসবে। এতে আওয়ামীলীগের অনেক নড়বড়ে প্রার্থীর মনে কাঁপন ধরিয়ে দেয়।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা আইভীর সাহচর্য যেমন এখন চাইবেন। তেমনি মেয়র আইভীও চাইবেন, দলের অনুগত এবং যোগ্য প্রার্থীর ব্যাপারে কেন্দ্রে সুপারিশ করতে। কেন্দ্রও যাচাই-বাঁছাই করে দেখবে যাতে নির্বাচনে লড়তে বিতর্কিতরা যেন সুযোগ না পান।

জেলার পাঁচটি আসনেই আওয়ামীলীগের প্রার্থী নির্বাচনে মেয়র আইভীর মতামত একটি ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করবে বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। 
 

এই বিভাগের আরো খবর